Saturday, March 2, 2024
Latest Newsখেলাফিচার নিউজ

উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগ চ্যাম্পিয়ন বায়ার্ন, কোমানের একমাত্র গোলে জয় জার্মান ক্লাবের

দৈনিক সমাচার, স্পোর্টস ডেস্ক : চেলসি, বার্সেলোনা, লিয়ঁকে উড়িয়ে দেওয়ার পর উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগ ফাইনালে পিএসজিকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হল এফসি বায়ার্ন মিউনিখ।

ম্যাচ শুরুর প্রথমার্ধ থেকেই মাঝমাঠের দখল নেওয়ার প্রতিযোগিতা চলছিল দু’দলের খেলোয়াড়দের মধ্যে। প্রথম কোয়ার্টারে সেই লড়াইয়ে অবশ্য এগিয়ে ছিল বায়ার্নই। বাঁদিকে বারবার কোমানের দৌড় ব্যতিব্যস্ত রাখছিল থিয়াগো সিলভাদের। কিন্তু এর পর থেকেই কিছুটা খেলা ধরতে শুরু করে পিএসজি।

১৮ মিনিটের মাথায় কিলিয়ান এমবাপের ডিফেন্স চেরা থ্রু থেকে নেমারের অসাধারণ ফ্লিক দুরন্ত সেভ করে দেন ম্যানুয়েল ন্যুয়ের। এর কিছুক্ষণ পর ২২ মিনিটের মাথায় পাল্টা আক্রমণ থেকে প্রায় গোল তুলে এনেছিল বায়ার্ন। কিন্তু অন্তরায় হয়ে দাঁড়ায় পোস্ট। লিওনডস্কির দুরন্ত শট পোস্টে লেগে প্রতিহত হয়।

ঠিক তার পরের মিনিটে নেমারের প্রায় ৫০ গজের লম্বা সোলো দৌড় থেকে অসামান্য আক্রমণ তৈরি করে পিএসজি। কিন্তু বক্সের ভিতর বল পেয়ে, ন্যুয়েরকে একা পেয়েও পোস্টের উপর দিয়ে উড়িয়ে দেন অ্যাঞ্জেল ডি মারিয়া। ৩১ মিনিটের মাথায় থমাস মুলারের অবধারিত গোলমুখী হেড সেভ করে দেন নাভাস। ফলে গোলশূন্য ভাবেই শেষ হয় ইউসিএল ফাইনালের প্রথমার্ধ।

দ্বিতীয়ার্ধের শুরু থেকেই কিছুটা গুছিয়ে খেলার চেষ্টা করে পিএসজি। তবে ৫৯ মিনিটের মাথায় বায়ার্নের হয়ে গোল করে যান কোমান। টপ বক্সের ঠিক বাইরে থেকে কিমিচের ঠিকানা লেখা ক্রস একেবারে মাথায় গিয়ে পরে কোমানের। আর তা সেকেন্ড পোস্ট দিয়ে জালে জড়িয়ে দেন কোমান। নাভাসের কার্যত কিছু করার ছিল না।

এরপর নেমার, এমবাপেরা একাধিক সুযোগ তৈরি করেছিলেন। কিন্তু কোনওটাকেই গোলে পরিণত করতে পারেননি। একাধিক বার ত্রাতার ভূমিকায় অবতীর্ণ হন ন্যুয়ের। শেষ পর্যন্ত ২০১৩ সালের পর ইউরোপ সেরা হল বায়ার্ন। এই নিয়ে ষষ্ঠবার ইউরোপ সেরা হল জার্মান ক্লাবটি।

 

 

Leave a Reply

error: Content is protected !!