Latest Newsফিচার নিউজরাজ্য

মমতার ‛নজরে’ মুকুল! সত্যজিৎ বিশ্বাস মার্ডার কেসে মুকুল রায়ের বিরুদ্ধে চার্জশিট সিআইডির

দৈনিকসমাচার, ডিজিটাল ডেস্ক : সরস্বতী পুজোর সন্ধেবেলা খুন হয়েছিলেন কৃষ্ণগঞ্জের তৃণমূল বিধায়ক সত্যজিৎ বিশ্বাস। তাঁকে গুলি করে খুন করেছিল দুষ্কৃতীরা। শনিবার সেই খুনের মামলায় বিজেপির সর্বভারতীয় সহ সভাপতি মুকুল রায়ের বিরুদ্ধে চার্জশিট পেশ করল রাজ্যের গোয়েন্দা দফতর সিআইডি।

সূত্রের খবর, খুনের ষড়যন্ত্রের মুকুলবাবু জড়িত ছিলেন বলে অভিযোগ। সত্যজিতের বয়স ছিল খুবই কম। মাত্র ৩৭ বছর। যুব তৃণমূল করার সময়ে শুভেন্দু অধিকারীর অত্যন্ত কাজের নেতা ছিলেন তিনি। উনিশের ভোটের আগে ৯ ফেব্রুয়ারি তাঁকে গুলি করে খুন করা হয়।

মুকুল রায় ছাড়াও সত্যজিতের খুনের ঘটনায় রাণাঘাটের বিজেপি সাংসদ জগন্নাথ সরকারের বিরুদ্ধে আগেই সাপ্লিমেন্টারি চার্জশিট পেশ করা হয়েছে। তাতে বলা হয়েছে, খুনের ঘটনায় মূল অভিযুক্ত অভিজিৎ পণ্ডারি ও আরও একজনের সঙ্গে আগে পরে কথা বলেছিলেন জগন্নাথ।

এদিন সিআইডি চার্জশিট পেশ করার পর রাজ্যে বর্তমান সরকারের বিরুদ্ধে প্রতিহিংসার রাজনীতির অভিযোগ করেছেন বিজেপি নেতৃত্ব। দলের মুখপাত্রদের কথায়, বাংলায় পুলিশ রাজ চলছে। বিরোধীদের মিথ্যা মামলায় ফাঁসানো এখানে রুটিনে পরিণত হয়েছে।

এদিন সকালে উত্তর কলকাতায় জনসম্পর্ক অভিযানে নেমেছিলেন মুকুল রায়। এ ব্যাপারে তাঁকে প্রশ্ন করা হলে মুকুলবাবু বলেন, “মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তো পুলিশ মন্ত্রী। তাঁর নির্দেশেই তো এই চার্জশিট হয়েছে। আমি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে বলছি, বুকে হাত দিয়ে বলুন, মুকুল রায় কি এই খুন করতে পারেন?”

সত্যজিৎ খুন হওয়ার পর তৃণমূলের তরফে অভিযোগ করা হয়েছিল, এই খুনের পিছনে মুকুল রায় রয়েছেন। মুকুল রায়ের বিরুদ্ধে ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে এফআইআর দায়ের করা হয়েছিল। তখনই মুকুল রায় আদালতে আগাম জামিনের আবেদন করেছিলেন। তা মঞ্জুর করেছিল আদালত। তবে আদালত জানিয়েছিল, এক- তদন্ত প্রক্রিয়া সহযোগিতা করতে হবে মুকুল রায়কে। দুই- তিনি নদীয়া জেলায় যেতে পারবেন না।

 

 

 

Leave a Reply

error: Content is protected !!