Latest Newsফিচার নিউজরাজ্য

তৃণমূল না করলে ত্রাণ নয়, আজব ফরমান উপপ্রধানের

দৈনিক সমাচার, ডিজিটাল ডেস্ক : তৃণমূল না করলে কোনও সরকারি সাহায্য নয়। রীতিমতো ফরমান জারি করেছেন সিমুলিয়া গ্ৰাম পঞ্চায়েতের তৃণমূলের উপপ্রধান। তৃণমূল দলের কর্মী না হলে সরকারি প্রাপ্য দিতেই অস্বীকার করছেন তিনি। প্রবল ক্ষোভ জানিয়ে তাঁর বিরুদ্ধে এই গুরুতর অভিযোগ তুলেছেন গ্ৰামবাসীরা। শুধু তাই নয়, বেপরোয়া উপপ্রধান তাঁদের পরিষ্কার বলে দিয়েছেন এরকমই হবে, যেখানে খুশি অভিযোগ জানাতে পারে গ্ৰামের মানুষ।

পূর্ব মেদিনীপুরের ভগবানপুর ১ ব্লকের সিমুলিয়া গ্ৰাম পঞ্চায়েত দপ্তরে নিত্যদিন এমনই ব্যবহার পান গ্ৰামবাসীরা। বুধবারেও ঘটেছে একই ঘটনা। এই পঞ্চায়েতের উপপ্রধান দীপ্তেন্দু মাইতি ভগবানপুর বিধানসভার তৃণমূল বিধায়ক অদ্ধেন্দু মাইতির ভাই। গ্ৰামবাসীরা ক্ষতিগ্রস্ত বাড়ির জন্য প্রাপ্য সরকারি সাহায্য চাইতে গেলে উপপ্রধান তাঁদের বেরিয়ে যেতে বলেন।

এক গ্ৰামবাসীর বক্তব্য, উপপ্রধান হুমকির সুরে বলেছেন, তোরা তৃণমূল করিস না তাই সরকারি সাহায্য পাবি না, যেখানে জানাবি জানা, আমার কিছু করতে পারবি না। এলাকার মানুষ বলেন, ওখানে বসে থাকা আরও অনেককেই এই কথা বলেন উপপ্রধান। এই ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে উপপ্রধান দীপ্তেন্দু মাইতিকে ফোনে যোগাযোগ করার চেষ্টা হলে দেখা যায় তাঁর ফোন বন্ধ রয়েছে।

এই উপপ্রধানের বিরুদ্ধে অভিযোগ দীর্ঘদিনের। স্থানীয় বাসিন্দাদের বক্তব্য, কয়েকদিন আগে ১০০ দিনের কাজের টাকা ভুয়ো নামে তোলাকে কেন্দ্র করে মামলা হয় উপপ্রধান দীপ্তেন্দু মাইতির বিরুদ্ধে। সে সময়ে বিক্ষোভ দেখান মানুষ। সেই মামলা এখনো চলছে। খবরের শিরোনামেও এসেছে সেই ঘটনা। পঞ্চায়েতের সদস্য কর্মীদের অনেকেই তার আচরণে ক্ষুব্ধ হলেও বিধায়কের ভাই বলে কিছু বলতে পারেন না।

কিছুদিন আগে শিশির অধিকারি সাংবাদিক সম্মেলন করে বলেছিলেন সরকারি কাজে দলবাজি চলবে না। সেসব যে শুধু স্তোকবাক্য তার প্রমাণ এই ঘটনা। গ্ৰামবাসীদের অভিযোগ, জেলাজুড়েই দলবাজি চলছে। সরকারের নির্দিষ্ট শর্ত পূরণ করলে সরকারি টাকা পাওয়া যাবে। টাকা পেতে তৃণমূল করতে হবে কেন? শুধু তাই নয়, আরও অভিযোগ, এই দীপ্তেন্দু মাইতিকে তোলা বা কাটমানি না দিলে কারো কোনও কাজ হয় না।

 

আরও খবরাখবর পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটসঅ্যাপ গ্রূপে

Leave a Reply

error: Content is protected !!