Latest Newsদেশফিচার নিউজ

আবুল কালাম আজাদের মধ্যে ‘ভারত’ বা ‘ভারতীয়ত্ব’ কোনওটাই ছিল না: যোগীর মন্ত্রী

দৈনিক সমাচার, ডিজিটাল ডেস্ক: বিতর্ক যেন বিজপির রক্তে রক্তে। বিতর্কিত মন্তব্য করাটা যেন গেরুয়া শিবিরের অভ্যাসে পরিণত হয়েছে। এবার দেশের প্রথম শিক্ষামন্ত্রী মৌলানা আবুল কালাম আজাদের ভারতীয়ত্ব নিয়ে প্রশ্ন তুললেন যোগীর এক মন্ত্রী। মৌলানা আবুল কালাম আজাদের মধ্যে ‘ভারত’ বা ‘ভারতীয়ত্ব’ কোনওটাই ছিল না, এমনটাই বিতর্কিত মন্তব্য যোগীর মন্ত্রী উত্তরপ্রদেশের বিজেপি নেতা ও মন্ত্রী আনন্দ স্বরূপ শুক্লার মুখে। তাঁর এমন দাবি ঘিরে স্বাভাবিকভাবেই দানা বেঁধেছে বিতর্ক।

বাল্লিয়ায় এক সভায় তাঁকে বলতে শোনা যায়, ‘‘আমার বলতে কোনও দ্বিধা নেই, আবুল কালাম আজাদের হৃদয়ে ‘ভারত’ বা ‘ভারতীয়ত্ব’ কোনওটাই ছিল না।’’ কেন তাঁর এমন মনে হল? আনন্দ স্বরূপ সেকথা বলতে গিয়ে টেনে এনেছেন ইতিহাসের প্রসঙ্গ। তাঁর কথায়, ‘‘ঔরঙ্গজেবের হাত থেকে নিজেদের বাঁচাতে কাশ্মীরি পণ্ডিতরা গুরু তেগবাহাদুরের দ্বারস্থ হয়েছিলেন। ওঁদের জোর করে ইসলামে ধর্মান্তরিত করা হচ্ছিল। গুরু এর প্রতিবাদ করতে যাওয়ায় তাঁর মাথা কেটে নিয়েছিলেন ঔরঙ্গজেব। এই সব সত্যি ঘটনা ইতিহাস থেকে মুছে ফেলা হয়েছে। আর তা স্পষ্টতই হয়েছে প্রথম শিক্ষামন্ত্রীর নির্দেশে। কেবলই আকবরকে মহান দেখানো হয়েছে। অথচ আইন-ই-আকবরি বা ঐতিহাসিকরা কেউই ওঁকে মহান বলেননি।’’

স্বাভাবিক ভাবেই এমন মন্তব্যকে ভালভাবে নিচ্ছে না কংগ্রেস। তাদের তরফে এমন মন্তব্যকে ‘দুর্ভাগ্যজনক’ বলে উল্লেখ করা হয়েছে। উত্তরপ্রদেশের কংগ্রেস মুখপাত্র অশোক সিং আনন্দ স্বরূপের এমন মন্তব্যকে ‘হাস্যকর ও অযৌক্তিক’ বলে জানিয়েছেন। তাঁর কথায়, ‘‘আবুল কালাম আজাদ এক শক্তিশালী শিক্ষাব্যবস্থার মাধ্যমে শক্তিশালী ভারতের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেছিলেন। দেশের প্রথম শিক্ষামন্ত্রী হিসেবে তিনি মেয়েদের ও গ্রামের গরিবদের শিক্ষার উপরে জোর দিয়েছিলেন।’’

প্রসঙ্গত, গত শতকের দুইয়ের দশকে দেশের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ জাতীয় নেতা হিসেবে উঠে আসেন মৌলানা আবুল কালাম আজাদ। ১৯২৩ সালে মাত্র ৩৫ বছর বয়সে কংগ্রেসের সভাপতি হয়েছিলেন তিনি। পাকিস্তান তৈরি হওয়ার অন্যতম বিরোধী এই নেতা বরাবরই ধর্মনিরপেক্ষতার পক্ষে সওয়াল করে গিয়েছেন।

 

Leave a Reply

error: Content is protected !!