Sunday, March 3, 2024
Latest Newsফিচার নিউজরাজ্য

লকডাউনে বেড়েছে ইসলামোফোবিয়া! ‛ভুল বোঝাবুঝি’ মেটাতে অভিনব উদ্যোগ এসআইও’র

নিজস্ব সংবাদদাতা, দৈনিক সমাচার, কলকাতা: ইসলাম সম্পর্কে মিথ্যাচার ও ইসলামোফোবিয়া মানুষের মনে বপন করতে এক শ্রেণীর মানুষ একেবারে উঠে পড়ে লেগেছে। এই মাত্রাটা লকডাউনে আরও বেড়েছে। এমনকি মিডিয়াকেও হাত করে ব্যাপক ভাবে মিথ্যাচার ও ইসলামোফোবিয়া তৈরি করার অপচেষ্টা চলেছে। বিশেষত কোভিড-১৯ এবং লকডাউনের গোড়ার দিকে ‘তবলীগ জামাত’কে নিশানা করে ব্যাপক ভাবে মিথ্যাচার ও ইসলামোফোবিয়া তৈরি করার অপচেষ্টা চলেছে। যার ফলে দেশজুড়ে এর ভয়াবহ প্রভাব পড়তে পারে। সেই কারণে দেশে ইসলামোফোবিয়া এবং সাম্প্রদায়িক বিষবাষ্প ছড়িয়ে দেওয়া আটকাতে ও ‛ভুল বোঝাবুঝি’ মেটাতে অভিনব উদ্যোগ নিল ছাত্র সংগঠন স্টুডেন্টস ইসলামিক অর্গানাইজেশন অফ ইন্ডিয়া (এসআইও)।

করোনা পরিস্থিতি এবং লকডাউনের প্রেক্ষিতে বিশ্ববাসীর মধ্যে এক ভয় ও নৈরাশার পরিবেশ তৈরি হচ্ছে। তাই মানুষের মাঝে আশা জাগাতে এবং ইসলাম সম্পর্কে ভুল ধারনা ও গোঁড়ামি দূর করতে “ইসলামকে জানুন” শিরোনামে প্রচারাভিযান শুরু করতে চলেছে এসআইও। সারা দেশ জুড়ে ১৫ থেকে ৩০শে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত এই প্রচারাভিযান চলবে। এই সময়ের মধ্যে মানুষের কাছে ইসলামকে পৌঁছে দিতে এবং সম্প্রীতির পরিবেশ গড়তে সংগঠনের পক্ষ থেকে একাধিক কর্মসূচী গ্রহন করা হয়েছে।

সংগঠন মনে করে যে, বর্তমানে মানব সমাজ উন্নতির চরম শিখরে পৌঁছে গেলেও একটি ভাইরাসের কাছে অসহায়ত্ব বরণ করে নিয়েছে। সুতরাং বর্তমান কোভিড-১৯ এর ফলে মানুষের অসহায়ত্ব হল স্রষ্টার অস্তিত্বের প্রমান। এছাড়া প্রতিনিয়ত দেশে ঘটমান সাম্প্রদায়িক হিংসা, বিদ্বেষ ও ঘৃণার পরিবেশ তৈরি হচ্ছে। তাই এই সবকিছুর সমাধান সূত্র হিসাবে সকলের সামনে ইসলামের শান্তিপূর্ণ জীবন ব্যবস্থা তুলে ধরতে হবে।

সংগঠনের রাজ্য সভাপতি ওসমান গনি এই প্রচারাভিযান সম্পর্কে বলেন, ‘কোভিড-১৯ প্রমান করে দিয়েছে সমগ্র বিশ্ব ব্যবস্থায় মহান স্রষ্টার আধিপত্য বিদ্যমান। এই প্রচারাভিযানের মাধ্যমে মানুষকে স্রষ্টার দিকে আহ্বান জানানো হবে।’ তিনি মনে করেন যে, মানব জীবনে ভয়, হতাশা ও চরম অশান্তি থেকে মুক্তি দিতে পারে ইসলামের আধ্যাত্মিক শক্তি। এছাড়া বর্তমানে ইসলামোফবিয়া সম্পর্কে তিনি মন্তব্য করেন, ‘ইসলামী জীবন ব্যবস্থা এবং মুসলিমদের সঠিক চারিত্রিক উপস্থাপনার মাধ্যমেই ইসলামোফোবিয়ার বিরুদ্ধে লড়াই করা সম্ভব।’

তিনি আরও বলেন, ‘প্রতিটা মুসলিমের দায়িত্ব হল কথা এবং কাজের মাধ্যমে সমাজের সামনে ইসলামের সঠিক রূপ স্পষ্ট করা।’ ওসমান গনি সংগঠনের সমস্ত কর্মীকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে “ইসলামকে জানুন” প্রচারাভিযান সফল করতে নির্দেশ দেন। সেই সাথে রাজ্যের সমস্ত মানুষকে তিনি সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি গড়ে তুলতে আহ্বানও জানান।

 

Leave a Reply

error: Content is protected !!